A Lalon singer Abdur Rab Fakir (আবদুর রব ফকির)

আবদুর রব ফকির লালনের ভাবশিষ্য। নিভৃতচারী এ শিল্পি লালনের গান করেন দীর্ঘদিন। কিন্তু প্রচার মাধ্যমে এসেছেন বছর কয়েক আগে। তিনি গান করেন লালনের আদিসুর ও ভাবে। এখানে আবদুর রব ফকিরের কন্ঠে লালনের অপ্রচলিত কিছু গান তুলে ধরা হলো। এ গানগুলো আবদুর রব ফকিরের মাধ্যমে মিডিয়ায় ওঠে আসে। লালনের আদি সুরের সাথে ফিউশন ধাচের গানগুলো সত্যি বিষ্ময়কর।

এ নীল মনিহার- লাকী আখন্দ

শৈশবেই সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন লাকী আখন্দ মাত্র ১৮ বছর বয়সে এইচ.এম.ভি. পাকিস্তানে সুরকার হিসেবে তালিকা ভুক্ত হন।
সুরকার হিসেবে আরো কাজ করেছেন এইচ. এম.ভি. ভারত এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রেও। তারপর বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর নতুন উদ্যমে বাংলা গান নিয়ে কাজ শুরু করেন। তাঁর নিজের সুর করা গানের সংখ্যা তাঁর কথায় দেড় হাজারেরও বেশি।অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা লাকী আখন্দ। তাঁর গাওয়া ও সুরের উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো ‘এই নীল মণিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘আগে যদি জানতাম’, ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’, ‘মা-মনিয়া’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘বিতৃষ্ণা জীবনে আমার’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘ভালোবেসে চলে যেও না’, ‘লিখতে পারি না কোনো গান’, ‘কি করে বললে তুমি’ ইত্যাদি।বাঙলা গানের এ গুনি শিল্পি 2017 সালের 21 এপ্রিল মারা যান। ল্পির প্রতি প্রদ্ধা জানিয়ে তাঁর স্ব-কন্ঠে নির্বাচিত কিছু গান তুলে ধরা হল।

লালনের অসাধারণ একটি মরমি গান, লালনের গানের বানীর সাথে শিল্পির গায়কী ও দেশীয় বাদ্যযন্ত্রের অপূর্ব সম্মিলন!

লালনের  অসাধারণ একটি মরমি গান,না শুনলে মিস! লালনের গানের বানীর সাথে শিল্পির গায়কী ও দেশীয় বাদ্যযন্ত্রের অপূর্ব সম্মিলন!

2 Bangla creative tune

ভারত উপমহাদেশের পেক্ষাপটে উপন্যাস লেখে ‍নোবেল পেয়েছিলেন জার্মানির সাহিত্যিক হেরম্যান হেস। সিদ্ধার্থ নামের এ উপন্যাসটি অবলম্বনে একটি দারুন চলচ্ছিত্র হয়েছিলো, সে চলচ্ছিত্রে মান্না দে এ গানটি গেয়েছিলেন। অনেক খুজেও গানটির ট্র্যাপ কোথাও পাইনি তাই আমাদের অপেশাদার কম্পোজার ’মরমি’র কন্ঠে গানটি তুলে দিলাম। আপনাদের ভালো লাগলো একটু আওয়াজ দিবেন।